সৌম্য ব্যাটিং পাল্টাননি, পাল্টাচ্ছেন নিজেকে

soimo

সৌম্য সরকার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে সেঞ্চুরি পেয়েছেন। আবাহনীও জিতেছে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে। বিশ্বকাপের আগে ফর্মে ফিরে নিজের ব্যাটিং নিয়ে অনেক কথাই বললেন জাতীয় দলের এ ব্যাটসম্যান

সেঞ্চুরি কিংবা ফিফটি পেলে এক হাতে ব্যাট উঁচিয়ে অন্য হাত দিয়ে বুকে টোকা মারতে দেখা যায় সৌম্য সরকারকে। কিন্তু আজ প্রিমিয়ার লিগে তা দেখা গেল না। সৌম্য সেঞ্চুরি পেলেন, তা বোঝা গেল শুধু স্কোরবোর্ড দেখে। সেঞ্চুরি পেয়ে ধ্যানমগ্ন ঋষির মতো পরের বলটা কীভাবে খেলবেন, সৌম্য ঢুকে গেলেন সে ভাবনায়। অথচ আবাহনীর জন্য ম্যাচটা ছিল মহাগুরুত্বপূর্ণ। বেশ কিছুদিন রানের মধ্যে না থাকা সৌম্যর এমন ম্যাচে সেঞ্চুরি পেয়েও ভাবলেশহীন থাকাটা অনেকেই অবাক করেছে। সৌম্য কি তবে নিজেকে পাল্টাচ্ছেন?

পেশাদার ক্যারিয়ারে ব্যাটসম্যানদের ভাঙাগড়ার মধ্য দিয়ে যেতেই হয়। টেকনিক আরও উন্নত করতে ব্যাটিংয়ের অনেক কিছু পাল্টানোর সঙ্গে মনোযোগ বাড়াতে নিজেকেও ভাঙতে হয়, গড়তে হয়। আজ লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের বিপক্ষে আবাহনীর ১০২ রানে জয়ের পর এমন কিছু কথাই বলেছেন জাতীয় দলের এই ব্যাটসম্যান। আর তাতে বোঝা গেল, বিশ্বকাপের জন্য সৌম্য আসলে প্রস্তুত হচ্ছেন। এই যেমন ধরুন, খারাপ খেললে কিংবা বাজে শটে আউট হলে নিজেই নিজের কাছে কৈফিয়ত চাওয়া। ভুলগুলো নিয়ে ভাবা এবং তা শোধরানোর চেষ্টা করা। এসবই আসলে একজন ব্যাটসম্যানের নিজেকে নিয়ে ভাঙাগড়ার খেলা। সৌম্য এই খেলায় এখন ভীষণ মনোযোগী।

২ ছক্কা ও ১৫ চারে ৭৯ বলে ১০৬ রানের ইনিংস। সৌম্যসুলভ ইনিংসই বটে! বিশ্বকাপের আগে রানে ফেরায় তাঁর স্বস্তিই পাওয়ার কথা। কিন্তু দ্রুত আউট (২৫তম ওভার) হওয়ায় নিজেই নিজেকে দাঁড় করাচ্ছেন কাঠগড়ায়, ‘আজ হয়তোবা শুরুটা ভালো হয়েছে। চেষ্টা করেছি একটা বড় ইনিংস খেলার। তারপরও অনেক দ্রুত আউট হয়ে গিয়েছি, ২৪ ওভারের সময়। যদি থাকতে পারতাম তাহলে আরও বড় ইনিংস খেলতে পারতাম।’

প্রিমিয়ার লিগে আবাহনীর আগের ম্যাচগুলোয় সৌম্য সেভাবে রান পাননি। আজ বড় ম্যাচ থাকায় তাঁর আলাদা একটা পরিকল্পনা ছিল। নিউজিল্যান্ডে জাতীয় দলের হয়ে কিছুদিন আগেই রান পেয়েছেন। কিন্তু ঘরোয়া ক্রিকেটে রানখরায় ভোগায় কিছুটা চাপও ছিল তাঁর ওপর, ‘চাপ বলতে, নিজের কাছে খারাপ লাগা ছিল। রান করতে পারছি না। কিছুদিন আগে জাতীয় দলে রান করে আসছি। নিজের কাছে খারাপ লাগছিল যে ওখানে রান করে এসে এখানে রান করছি না।’

ঠিক এরপরই নিজের ব্যাটিং নিয়ে ভাঙাগড়ার ভাবনার কথা জানালেন সৌম্য, ‘একটু চাপও কাজ করছিল, কেন কী ভুল করছি। এগুলো নিয়ে নিজের ভেতরে অনেক প্রশ্ন ছিল। দক্ষতার পাশাপাশি কেন এমন হচ্ছে দেখছি। একদিনে তো আর কেনোর উত্তর পাওয়া যাবে না। আউটগুলো নিয়ে বাসায় গিয়ে চিন্তা করা, আমি ভিন্ন কিছু করতে পারতাম কি না। আগের যে ভিডিওগুলো ছিল, তা দেখেছি। এ বলগুলোয় আমি ওখানে কি খেলেছি, এখানে কি খেলছি। এগুলো নিয়েই আর কি নিজের চিন্তা।’

তা এমন ভাবনা তো প্রায় সব ব্যাটসম্যানেরই থাকে। কিন্তু এসব ভাবনার প্রভাবে ব্যাটিংয়ের ধরন কি পাল্টাবে? সৌম্যর জবাব, ‘না ব্যাটিংয়ের ধরনে পরিবর্তন আনি নি। মনোযোগ বাড়ানোর চেষ্টা করেছি। সোজা ব্যাটে ব্যাট করার চেষ্টা করেছি।’

সুপার লিগে রূপগঞ্জকে হারিয়ে শিরোপা জয়ের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেল আবাহনী। ১৫ ম্যাচে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে দলটি (রানরেট ০.৯০৫)। টেবিলে দ্বিতীয় রূপগঞ্জের সংগ্রহও ২৪ পয়েন্ট, তবে রানরেটে (০.৪২৫) পিছিয়ে আছে দলটি।

Please follow and like us:
error

Developed by: