হাজী তোয়াব আলীর ১ম মৃত্যুবার্ষিকী ও স্মারকগ্রন্থে প্রকাশনা সম্পন্ন

তিনি ছিলেন নীরব সমাজকর্মী, মানবীয় গুণে ভরপুর একজন সফল অভিভাবক। বর্তমানের সামাজিক ও নৈতিক অবক্ষয়ের দুঃসময়ে এরকম মানুষের খুব বেশি প্রয়োজন। সমাজে এরকম মানুষের জন্ম হলে সমাজ থেকে নেতিবাচক কর্মকাণ্ড দূর হবে এবং একটি সুন্দর সমাজ বিনির্মাণ করা সহজ হবে।
গত ১৯ ফেব্র“য়ারি শুক্রবার সন্ধ্যায় আফলাতুন নেছা-পীর বকস পাঠাগারের উদ্যোগে পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান উপদেষ্ঠা হাজী তোয়াব আলীর ১ম মৃত্যুবার্ষিকী ও স্মারকগ্রন্থে প্রকাশনা অনুষ্ঠানে বক্তারা উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
আফলাতুন নেছা-পীর বকস পাঠাগারের সভাপতি মোহাম্মদ নওয়াব আলীর সভাপতিত্বে এবং মারুফ আহমদ ও সাব্বির আহমদ সোনা মিয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্বনাথ জামেয়া মোহাম্মদীয় মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক মাওলানা আবদুল মতিন, গুপ্তরগাঁও কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমামা মাওলানা মো. সাদিকুর রহমান খাদিমানী, কৃষ্ণপুর জামে মসজিদের ইমাম এম. এ রহিম, মত্রাশপুর জামে মসজিদের ইমাম কারি আনছার আলী, সমাজসেবী মো. ছোয়াব আলী ও আবদুল ওয়াহিদ।
নাবিদ হাসানের কোরআন তেলাওয়াতে ও রহমত আলীর খোকনের শুভেচ্ছা বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত সভায় আলোচনায় অংশ নেন বিশিষ্ট মুরব্বি মো. জমির মিয়া, বিশিষ্ট মুরব্বি মানিক মিয়া, সমাজসেবী আবু সলমান চৌধুরী, জমিরুল হক, মুরব্বি জুনাব আলী, শিক্ষক ইউনুছ আহমদ সুহেল, ব্যবসায়ী জুবেল আহমদ, সমাজসেবী সুনু মিয়া, সমাজকর্মী শিব্বির আহমদ, সমাজকর্মী কাওছার আহমদ ও নয়ন মিয়া। সভা শেষে দোয়া পরিচালনা করেন হাফিজ এম এ রহিম।
উল্লেখ্য হাজি মো. তোয়াব আলী গত বছরের ২০ ফেব্র“য়ারি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে সকাল ৬.৩০ মিনিটে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬২ বছর। তিনি এক ছেলে সন্তানের জনক।

Developed by: