বিভাগ: প্রবাস

ব্রিটেনের সরকার ও বিরোধীরা স্কটল্যান্ড নিয়ে একাট্টা

uk_leaders_148414স্কটল্যান্ড নিয়ে এবার একাট্টা ব্রিটেনের সরকার ও বিরোধী দল। স্বাধীনতা প্রত্যাখ্যান করলে স্কটল্যান্ডের হাতে আরো ক্ষমতা দেয়ার অঙ্গীকার করেছে ব্রিটেনের প্রধান তিনটি দল। ব্রিটেনের মূল তিনটি দলের নেতা ডেভিড ক্যামেরন, এড মিলিব্যান্ড এবং নিক ক্লেগ তিনজনই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে স্কটিশরা স্বাধীনতা প্রত্যাখ্যান করলে তারা স্কটল্যান্ডের কাছে আরো ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন। আগামী বৃহস্পতিবার স্বাধীনতার প্রশ্নে স্কটল্যান্ডে গণভোট অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে। খবর বিবিসি।
এদিকে স্কটল্যান্ডে স্বাধীনতার প্রশ্নে গণভোটের আগে শেষবারের মতো সেখানে সফর করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন। আবেগাপ্লুত এক ভাষণে ক্যামেরন স্কটদেরকে যুক্তরাজ্য ছেড়ে না যাবার আবেদন জানিয়ে ডেভিড ক্যামেরন তার ভাষণে বলেন, এই সিদ্ধান্ত শুধুমাত্র এ প্রজন্মের স্কটদের জন্য নয়, বরং এটি তাদের সন্তান, নাতি-নাতনি এবং তার পরবর্তী প্রজন্মের জন্যেও। তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ভাঙ্গন হলে সেটি হবে বেদনাদায়ক বিচ্ছেদের মতো। গণভোটে না ভোট জয়ী হলে স্কটল্যান্ডকে আয়কর এবং ব্যয়ের ক্ষেত্রে আরো ক্ষমতা দেয়ার অঙ্গিকার করেন মি. ক্যামেরন।
তবে স্কটল্যান্ডের ফার্স্ট মিনিস্টার এলেক্স স্যামন্ড বলেছেন, স্বাধীন হলে স্কটিশ অর্থনীতির উন্নয়ন ঘটবে। তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ’ ভোট জয়ী হলে স্কটিশ অর্থনীতি আরো বেগবান হবে।

 

ফ্রান্স জাতীয় ক্রিকেটলীগে পাকিস্থানকে হারিয়ে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন

10168531_10201774714505454_1225082968_nফ্রান্সে তৃতীয় বিভাগ জাতীয় টি-টুয়েন্টি ক্রিকেট লীগের ফাইনালে শিরোপা জিতল বাংলাদেশ ক্রিকেট ক্লাব,প্যারিস | গত শনিবার বিকেলে প্যারিসের বিনসেন মাঠে অনুষ্ঠিত ফাইনাল খেলায় এর্জেনটাইল ক্রিকেট ক্লাব পাকিস্তান,ফ্রান্সকে ৩৭ রানে হারিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট ক্লাব,প্যারিস চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

আর এ বিজয়ের ফলে নির্ধিদায় ফ্রান্স ২য় বিভাগ জাতীয় টি -টুয়েন্টি ক্রিকেট লীগে অংশ গ্রহণ করার পথ সুগম হলো বাংলাদেশ ক্রিকেট ক্লাব প্যারিসের। ফলে বাংলাদেশী কমিউনিটিতে বইছে আনন্দের বন্যা।

ফ্রান্সের ১৭টি ক্লাবের অংশগ্রহনে অনুষ্ঠিত টি -টুয়েন্টি ক্রিকেট লীগের ফাইনালে বাংলাদেশ দল টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন দলের অধিনায়ক রাশেদ হাসান শাকিল।

দর্শকদের তুমুল করতালি আর বাংলাদেশ বাংলাদেশ স্লোগানের মধ্যে দিয়ে মাঠে প্রবেশ করেন ওপেনিং জুটি শুভ ও জনী। উত্সাহ দিতে থাকেন মাঠের বাইরে অবস্থান নেয়া ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের দুতাবাসের কাউন্সিলর হজরত আলী খান ,ইয়ত ক্লাবের সভাপতি শরিফ আল মমিন ,সম্পাদক টিএম রেজা ,শিল্পী আরিফ রানা ,হেনু মিয়া, মিন্টু চৌধুরী ,শুভ্র দাসহ প্যারিসে অবস্থানরত বাংলাদেশের বিভিন্ন সংগঠনের রাজনৈতিক ,সামাজিক, ও মিডিয়া নেতৃবৃন্দ ।

শুভ করেন ৩৬ আর জনি করেন ১৩। এরপর ১৯ ওভার ৪ বল খেলে সব কটি উইকেট হারিয়ে পাকিস্তানি বোলারদের নিয়ন্ত্রিত

বোলিংয়ের বিপরীতে বাংলাদেশের জুলিতে রানের সংখ্যা দাড়ায় ১০১। বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ রান করেন শুভ।

জবাবে বাংলাদেশ দলের অনবদ্য পারফরম্যান্সের ফলে ৩৭ রানে জয়ী হয় বাংলাদেশ ক্রিকেট ক্লাব ফ্রান্স। ফ্রান্সের বুকে রচিত হয় আরেক অধ্যায়ের। বাংলাদেশ দলের বোলিংয়ে এদিন ধারহীন নৈপুণ্য দেখান মোজাহিদ। তিনি নেন দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট।

খেলায় ম্যান অব দ্যা ম্যাচ হন বাংলাদেশ দলের শুভ মল্লিক।

বাংলাদেশ দলের স্কোর শুভ ৩৬,ফয়সাল ২৪,জনি ১৩,আশু ৮,শামস ৭,শাকিল ৬,ও অতিরিক্ত ৭। উইকেট নেন মোজাহিদ ৩,হালিম ২,আশু ১,শামস ২,শাকিল ১ ও রান আউট হয় ১ টা।

বাংলাদেশ দলে খেলোয়ার ছিলেন যতাক্রমে রাশেদ হাসান শাকিল (অধিনায়ক),ওয়াশিউজ্জামান (সহ অধিনায়ক), আজিজুল হক সুমন ,শামসুল আলম শামস ,ফয়সাল খান ,রাহাত খান জনি,আরিফ মোজাহিদ ,আব্দুল হালিম ,মোহাম্মদ জাবেদ , শুভ মল্লিক ,নজিব উল্লাহ পিয়াস ,মুবারক রাকিব ,সুমন মল্লিক ,মামুন খান ,সাগর খান আনোয়ার হোসেন ,মঞ্জুর আহমদ ,আক্তারুজ্জামান রয়েল।

ডেনমার্কে মুসলমানদের প্রথম মসজিদ

1002_1ডেনমার্কে নির্মিত হয়েছে মুসলমানদের নামাজ আদায়ের জন্য প্রথম মসজিদ। দেশটিতে বসবাসকারী মুসলমান নাগরিকদের জন্য এ মসজিদটি বৃহস্পতিবার উন্মুক্ত করে দেয়া হয়।

কাতার সরকারের অনুদানে কোপেনহেগেনের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর গ্রিটিতে মিনারসহ নির্মিত হয়েছে মসজিদটি। অনুদানের পরিমাণ ছিল ২১০ কোটি ৮২ লাখ ৭২ হাজার টাকা। মসজিদটি ৭২ হাজার ১১৮ বর্গফুটের। মুসলিম নাগরিকরা কাতার সরকারকে এজন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন। এছাড়া ডেনমার্ক সরকার এতে সহযোগিতা করায়স্থানীয় মুসলমানরা তাদের প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ।

উল্লেখ্য, ডেনমার্কে বর্তমানে সবচেয়ে বড় সংখ্যালঘু সম্প্রদায় মুসলমানরা। প্রায় দুই লাখ মুসলিম নাগরিক বাস করেন এখানে। কোপেনহেগেনের মুসলিম কমিউনিটিতে রয়েছে একটি সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, একটি টেলিভিশন স্টুডিও ও একটি ব্যায়ামাগার। এবার নির্মিত হলো মসজিদ কমপ্লেক্স। স্থানীয় মুসলিমরা তাই বেশ আনন্দিত। সূত্র: এএফপি

প্রবাসী জিলানী : একজন আদর্শ ব্যক্তিত্ব

images11মেধা মননে একজন বিচক্ষণ বাঙালি এ কে এম জিল্লুর রহমান জিলানী। পরোপকারে বেশিভাগ সময় ব্যয় করেন। তিনি ইউরোপের ইংল্যান্ডে বসবাস করলেও বুকে ধারণ করেন বাংলাদেশকে। আমাদের সাহিত্য ও সংস্কৃতিকে গভীরভাগে ভালোবাসেন জিলানী। এ মাধ্যমগুলোতে মিশে থাকতে চান আজীবন। কারণ এখানে রয়েছে তাঁর মনের খোরাক। আত্মার মিল।
জিল্লুর রহমান জিলানীর জন্ম ১৯৫৭ খ্রিস্টাব্দের ২৩ মার্চ। তিনি সিলেটের দক্ষিণ সুরমার কুচাই ইউনিয়নের পশ্চিমভাগ গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। পিতা মরহুম হাবিবুর রহমান ও মাতা মরহুমা রোকেয়া খানম। পিতা হাবিবুর রহমান প্রথম দিকে মুসলিম লীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন, পরবর্তীতে আওয়ামীলীগ রাজনীতি করতেন। তিনি কুচাই ইউনিয়ন পরিষদে দুই মেয়াদে বার বছর মেম্বার হিসেবে জনগণের সেবা করেন এবং মৃত্যুর পূর্ব মুহুর্ত পর্যন্ত বাস মালিক সমিতির সভাপতির গুরুদায়িত্ব পালন করেন।
জিল্লুর রহমান জিলানী প্রাথমিক শিক্ষা শুরু করেন ব্লুবার্ড স্কুলে। পরবর্তীতে তিনি দুর্গাকুমার পাঠশালায় তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করে সিলেট সরকারি পাইলট হাই স্কুল থেকে ১৯৭২ সালে এসএসসি পাশ করেন। ভর্তি হন এমসি কলেজে (বর্তমানে যা সরকারি কলেজ) এবং ১৯৭৫ সালে যথারীতি এইচএসসি পাশ করেন। তারপর সুপরিচিত বিদ্যাপীঠ সিলেট সরকারি কলেজ অর্থাৎ বর্তমান এমসি কলেজ থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে অনার্স পাস করেন এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮১ খ্রিস্টাবে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন। লেখাপড়া শেষে দেশে কিছু দিন চাকরি করেন। ১৯৮৬ সালে তিনি স্বপ্নের দেশ ইংল্যান্ড ভ্রমণ করেন এবং সেখানেই স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন।
ইংল্যান্ডে বাঙালিদের চিরচেনা রেষ্টুরেন্ট ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন তিনি এবং ধীরে ধীরে একজন সফল ব্যবসায়ী হিসেবে খ্যাতি লাভ করেন। ব্যবসায় সফল হলেও তিনি শুধু ব্যবসায় ডুবে থাকেননি। ইংল্যান্ডের বহুল প্রচারিত সাপ্তাহিক সুরমা পত্রিকায় কাজ করার প্রয়াস পান। সাপ্তাহিক সুরমা পত্রিকার সত্যবাণী সম্পাদনা দায়িত্ব তাঁর ওপর পড়ে এবং সফলতার সাথে তিনি সম্পাদনা করেন। পরবর্তীতে তিনি ‘সাপ্তাহিক পত্রিকায়’ কাজ শুরু করেন। সাপ্তাহিক পত্রিকায়ও তিনি ইসলামের শিক্ষা, ইতিহাস ও ঐতিহ্য পাতা সম্পাদনা করেন। বর্তমানেও তিনি সাপ্তাহিক পত্রিকায় কর্মরত আছেন। ধর্মের প্রতি অগাধ বিশ্বাস এবং ধর্মীয় চিন্তাচেতনায় গভীর মনোযোগ থাকায় তাঁর ওপর পত্রিকার ধর্মীয় পাতাগুলো সম্পাদনার দায়িত্ব পড়ে। তিনি দৃঢ়তা ও দক্ষতার সাথে তাঁর দায়িত্ব পালন করে যান।
জিল্লুর রহমান জিলানী আপাদমস্তক একজন মুসলমান। কোরআন ও হাদিসের শাশ্বত বাণী মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে মেধা ও অর্থ উভয় ব্যয় করতে কার্পণ্য করেন না। তিনি বাংলাদেশের খুলনার প্রফেসর শামসুর রহমান এর ৪০টির মত ইসলামী বই নিজের অর্থায়নে প্রকাশ করে দিয়েছেন।
জিলানী একজন গর্বিত বাঙালি। যিনি কাজে বিশ্বাসী। নিরবে নিভৃতে কাজে ডুবে থাকতে চান। কাজে আনন্দ পান। কথায় আর কাজে মিল রেখে এগুতে চান সামনের দিকে। তিনি সর্বদা প্রচারবিমুখ। প্রবাসে ব্যবসার পাশাপাশি বহুল প্রচার মাধ্যম সংবাদপত্রে কাজ করেও প্রচারবিমুখ তিনি।
আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত হলেও ফার্স্ট ওয়ার্ল্ডের কালচার সংস্কৃতিকে ধারণ করতে চান না। শাশ্বত ইসলামের ঐশিবাণী বুকে ধারণ করে তাঁর নিত্যদিনের পথ চলা। তিনি কুরআন ও সুন্নার প্রতি গভীর অনুরক্ত। তাই নিজ খরচে ও নিজের তত্বাবধানে বোখারী শরীফ ও আবু দাউদ শরীফের সকল খন্ড বাংলায় অনুবাদ করান এবং সাধারণ মানুষের পড়ার সুযোগ করে দেন। তাঁর পৃষ্ঠপোষকতায় ঢাকার আলবাণী একাডেমি থেকে বোখারী শরীফ ও আবু দাউদ শরীফ প্রকাশিত হয়েছে। তিনি আবার আলবাণী একাডেমির অনেক ইসলামি বইয়ের প্রকাশক এবং পৃষ্ঠপোষকের দায়িত্ব পালন করছেন। এ জন্য আলবাণী একাডেমি তাঁকে প্রধান উপদেষ্টা মনোনিত করেছেন এবং খুলনার প্রফেসর শামসুর রহমান সংসদের সাথেও তিনি ওতোপ্রোতভাবে জড়িত।
জিল্লুর রহমান জিলানী ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত। তিনি ১৯৮৩ সালে বিবাহ বন্ধনে আবন্ধ হন। তাঁর সহধর্মিণী জেসমিন নাহার রহমান। তাদের দুই ছেলে ও এক মেয়ে সন্তান। বড় ছেলে সানিয়াত রহমান অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে বায়ো কেমিস্ট্রিতে এমএসসি পাস করে লন্ডন ইমপিয়েল কলেজে পিএইচ.ডি অধ্যয়নরত। ছোট ছেলে জাহিন রহমান ইংরেজি সাহিত্যে অনার্স করছেন। আর একমাত্র মেয়ে রামিশা রহমান ও লেভেল পরীক্ষার ফল প্রার্থী।
জিলানী একজন সফল, সুখী ও সার্থক মানুষ। তাঁর মনে সদানন্দ বিরাজ করছে। বাকী দিনগুলো এভাবেই কাটিয়ে দিতে চান তিনি।

বিচারক শাহিনা রহমান

27-7-6সিলেট জেলার প্রথম মহিলা জজ হিসেবে কৃতিত্ব অর্জন করেন শাহিনা রহমান। শাহিনা রহমানের জন্ম ১৯৫৯ খ্রিস্টাব্দের ১৫ অক্টোবর। দক্ষিণ সুরমা উপজেলার কুচাই ইউনিয়নের পশ্চিমভাগ গ্রামের (মরহুম) হাবিবুর রহমান ও (মরহুমা) রোকেয়া খানমের গর্বিত সন্তান শাহিনা রহমান সিলেট গভর্নমেন্ট হাইস্কুল থেকে ১৯৭৪ খ্রিস্টাব্দে কৃতিত্বের সঙ্গে এস.এস.সি, সিলেট মহিলা কলেজ থেকে ১৯৭৬ খ্রিস্টাব্দে এইচ.এস.সি পাস করেন। তিনি ১৯৭৮ থেকে ১৯৮১ খ্রিস্টাব্দে ঢাকা ইউনিভার্সিটি থেকে এল.এল.বি অনার্স সম্পন্ন করেন এবং ১৯৮১ থেকে ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এল.এল.এম পাস করেন। শাহিনা রহমান ১৯৮৩ খ্রিস্টাব্দে বি.সি.এস পাস করে বিচার বিভাগে সহকারী জজ হিসেবে চাকরিতে যোগ দেন। তিনি ২০০৬ খ্রিস্টাব্দে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের সিটি ইউনিভার্সিটি থেকে বিজনেস ম্যানেজমেন্টে এসোসিয়েট ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ১৯৯৫ থেকে ২০০৭ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইনেন্স কর্পোরেশন ঢাকার ল অফিসার এবং প্রিন্সিপাল অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি সিলেট জেলার প্রথম মহিলা জজ। বর্তমানে তিনি নিউইয়র্ক সিটির বোর্ড অব এডুকেশনে কর্মরত আছেন। তিনি শীঘ্রই বাংলাদেশে ফিরে ল প্র্যাকটিস করতে চান। শাহিনা রহমান দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন সামাজিক ও সমাজসেবা মূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন।

ইঞ্জিনিয়ার এম.এ. হামিদ

31-17মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ দক্ষিণ সুরমা উপজেলার তরুণ প্রজন্মের এক গর্বিত উত্তরাধিকারীর নাম। ইংল্যান্ড প্রবাসী এম.এ হামিদ অক্লান্ত পরিশ্রম ও সাধনার ফলে স্থান করে নিয়েছেন সাউথঅ্যান্ড এয়ারপোর্ট প্রসপেক্ট এভিয়েশন সেন্টারে প্রশিক্ষণ ব্যবস্থাপক পদের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে নিজেকে।
লালাবাজার ইউনিয়নের আলীনগর গ্রামের বাসিন্দা এম.এ হামিদ ১৯৭৭ খ্রিস্টাব্দের ৮ জুন জন্মগ্রহণ করেন। পিতা (মরহুম) আব্দুন নূর মাস্টার ছিলেন একজন শিক্ষাবিদ। শিক্ষার প্রতি ছিল অসাধারণ দুর্বলতা। তাই মৃত্যুর আগ পর্যন্ত শিক্ষার প্রসারে কাজ করে গেছেন। তাঁর গর্ভধারিণী মাতা রাবেয়া খাতুন।
এম.এ হামিদ ইংল্যান্ডের ৫৪ হারকোট এভিনিউ সাউথঅ্যান্ড অন-সি-তে বসবাস করেন। তিনি সাসেক্স এর ব্রাইটন কলেজ অব টেকনোলজি থেকে ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দের জুন মাসে সিটি অ্যান্ড গিল্ডস ইন ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ ইঞঊঈ ভরৎংঃ পবৎঃরভরপধঃব রহ ঊহমরহববৎরহম লাভ করেন। সাসেক্স সোরহাম এয়ারপোর্টের নথব্রোক কলেজ  থেকে নভেম্বর ১১৯৭ খ্রিস্টাব্দে অবৎড়ঢ়ষধহব অ১ ্ ঢ়রংঃড়হ ঊহমরহব ঈঅঅ ‘অ্ঈ (খরপবহংবফ ঊহমরহববৎ) উরঢ়ষড়সধ রহ অরৎপৎধভঃ গধরহঃবহধহপব কোর্স সম্পন্ন করেন। লন্ডনের সিটি ইউনিভার্সিটি থেকে ২০০৩ খ্রিস্টাব্দের জুন মাসে ই ঊহম (যড়হ’ং) অরৎ ঞৎধহংঢ়ড়ৎঃ ঊহমরহববৎরহম কোর্স সম্পন্ন করেন। ফার্নব্ররো কলেজ অব টেকনোলজি হতে সেপ্টেম্বর ২০১০ থেকে ডিসেম্বর ২০১২ খ্রিস্টাব্দে চএ ঈবৎঃরভরপধঃব রহ ঊফঁপধঃরড়হ সার্টিফিকেট অর্জন করেন।  কেন্টের বিগিন হিল এয়ারপোর্টের ফলকন ফ্লাইয়িং সার্ভিস হতে ডিসেম্বর ১৯৯৭ থেকে জুলাই ১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দে অরৎপৎধভঃ সধরহঃবহধহপব ঃবপযহরপরধহ কোর্স সম্পন্ন করেন।
সাসেক্স সোরহাম এয়ারপোর্টের কে.বি এভিয়েশন হতে আগস্ট ১৯৯৮ থেকে মে ২০০৩ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত গধরহঃবহধহপব ঊহমরহববৎ (রিঃয পড়সঢ়ধহু ধঢ়ঢ়ৎড়াধষ)
জুলাই ২০০৪ থেকে সেপ্টেম্বর ২০০৮ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত তিনি টিউটর ইন প্রথম এবং দ্বিতীয় বর্ষ এরোনটিকেল সাবজেক্টে সিটি ইউনিভার্সিটি লন্ডন থেকে এবং একজন এয়ারক্রাফট মেনটেনেন্স ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি ২০০৮ খ্রিস্টাব্দের ডিসেম্বর থেকে ২০০৯ খ্রিস্টাব্দের ডিসেম্বর বাংলাদেশের এরোনেটিক্যাল কলেজে উচ্চতর শিক্ষা ব্যবস্থাপক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি ঢাকায় সৌদিআরব এয়ারলাইন স্টেশনে ২০০৮ খ্রিস্টাব্দের অক্টোবর থেকে ২০১০ খ্রিস্টাব্দের জানুয়ারি পর্যন্ত লাইন মেনটেইনেন্স ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে পার্টটাইম কাজ করেন। তিনি হ্যামশায়ার শহরের ফার্মবরো কলেজ অব টেকনোলজিতে লেকচারার হিসেবে ২০১০ খ্রিস্টাব্দের এপ্রিল হতে ২০১২ খ্রিস্টাব্দের ডিসেম্বর পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি সাউথঅ্যান্ড এয়ারপোর্ট প্রসপেক্ট এভিয়েশন সেন্টারে প্রশিক্ষণ ব্যবস্থাপক পদে নিয়োজিত আছেন।
ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত। তাঁর স্ত্রী নাজিয়া মান্নান। একমাত্র কন্যা মাইমুনা হামিদের জনক তিনি।

হোসেন আহমদ

31-16ব্রিটেনে সফল ক্যাটারিং ব্যবসায়ী ও সমাজসেবী আলহাজ হোসেন আহমদ দক্ষিণ সুরমা উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের রায়খাইল গ্রামে ১৯৫৬ খ্রিস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা হাজি আছাব আলী ও মাতা সূর্যবান বিবি।
আত্মপ্রচারবিমুখ এবং সহজসরল সাদামাটা জীবনযাপনের অধিকারী হোসেন আহমদ ১৯৭৮ খ্রিস্টাব্দে ব্রিটেনে গমন করেন। তিনি ব্রিটেনে ব্যবসার পাশাপাশি জনকল্যাণমূলক নানা কর্মকাণ্ডেও নিজেকে সম্পৃক্ত করেছেন। তাঁর মাতৃভূমির
প্রতি অগাধ ভালোবাসা লক্ষ করা যায়। সুযোগ পেলেই তিনি চলে আসেন। মাতৃভূমিতে কাজ করতে চান সমাজের কল্যাণে। তাঁর গ্রামের বাড়িতে নিজস্ব ভূমিতে প্রতিষ্ঠা করেছেন রায়খাইল প্রাথমিক বিদ্যালয়। পিতার নামে হাজি আছাব আলী বৃত্তি,  যা মেধাবী ছাত্রছাত্রীদেরকে প্রতিভা বিকাশে সাহায্য করে। জালালপুর কলেজের শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের জন্য একটি গাড়ি কিনে দিয়েছেন। এছাড়া বড়বাঘা সেতু নির্মাণ কাজে বিরাট অঙ্কের অর্থ সাহায্যসহ মসজিদ মাদ্রাসায় দান করে যাচ্ছেন। তিনি জালালপুর ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান। উপদেষ্টা দক্ষিণ সুরমা ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন এবং স্বাস্থ্য শিক্ষা প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে নিয়োজিত বেসরকারি সংস্থা ‘হেলিক্স’ এর অন্যতম উপদেষ্টা।
তিনি সিলেট নগরীর জিন্দাবাজারস্থ সিলেট মিলেনিয়াম এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর। ১৮ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত দৃষ্টিনন্দন এই মার্কেটটি ২০০২ খ্রিস্টাব্দে উদ্বোধন করা হয়। তাঁর সহধর্মিণী ফাতেমা খানম।

এ. বারী

31-18অদম্য ইচ্ছা আর প্রবল আত্মশক্তিতে বলীয়ান এ. বারী ব্যক্তিমালিকানায় ম্যানর পার্কের পাশে গড়ে তোলেন ‘দি রয়েল রিগানন্সি’ নামক সুবিশাল কমিউনিটি সেন্টার। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এ হলে রাতে ৭৫০ জন অতিথি ও বিকেলে ১১শ অতিথি আপ্যায়নের আসন রয়েছে। এছাড়া আলাদা অডিটরিয়ামে ৩৫০ জন অতিথির আসন আছে। গাড়ি পাকিং এর সুযোগ সুবিধাসহ এ বিশাল হলগুলোতে প্রবাসীরা তাদের সামাজিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান নির্দ্বিধায়
পালন করতে পারেন। দক্ষিণ সুরমার লালাবাজার ইউনিয়নের আলীনগর গ্রামের অধিবাসী হাজি মন্তাজ আলীর একমাত্র পুত্র এ. বারী দাখিল পরীক্ষায় অংশগ্রহণের পূর্বেই পাড়ি জমান বিলাত মুল্লুকে। বিলাতে গিয়ে লেখাপড়াসহ রেস্টুরেন্টে কাজ শুরু করেন। রেস্টুরেন্টে কাজ করে বড় কিছু করার স্বপ্ন বুনেন যার প্রতিফলন ঘটে ‘দি রয়েল রিগানন্সি’ নামক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে। এখন তিনি একজন সুপ্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। ব্যবসার পাশাপাশি রয়েছে সামাজিক কর্মকাণ্ডে তাঁর সম্পৃক্ততা।

আইরিন খান

indexমানবাধিকার সংস্থা এ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এর সপ্তদশ মহাসচিব আইরিন খান। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আলোকিত এই সফল নারী হচ্ছেন এ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের প্রথম এশীয় মুসলিম নারী। সর্বোপরি প্রথম বাংলাদেশি মহাসচিব। আইরিন খানের জন্ম ১৯৫৭ খ্রিস্টাব্দে ঢাকায়। তাঁর গ্রামের বাড়ি দক্ষিণ সুরমার সিলাম ইউনিয়নের বিরাহিমপুর গ্রামে। পিতার নাম সিকান্দর আলী খান। দক্ষিণ সুরমার উজ্জ্বল নক্ষত্র আইরিন খান ম্যানচেস্টার
বিশ্ববিদ্যালয় ও হার্ভার্ড ল স্কুল থেকে পাবলিক ইন্টারন্যাশনাল ল অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস বিষয়ে পড়াশোনা করেন। তিনি দীর্ঘদিন বিভিন্ন মানবাধিকার বিষয়ক আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দে তিনি জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশনে যোগদান করেন। ১৯৯১ থেকে ১৯৯৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশনার সাদাকো ওগাটার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দে কসোভো সংকটের সময় যুগোশ্লোভিয়ায়ও একই দায়িত্ব পালন করেন এবং ওই বছরের শেষের দিকে তিনি এই.এন.এইচ.সি.আর এর উপপরিচালক নিযুক্ত হন। তিনি এ পর্যন্ত বিভিন্ন একাডেমিক পুরস্কার লাভ করেছেন। ফোর্ড ফাউন্ডেশন ফেলোশিপ পেয়েছেন। ২০০২ খ্রিস্টাব্দে তিনি ওম্যান অব দ্যা ইয়ার পুরস্কারে ভূষিত হন। তিনি ২০০৬ খ্রিস্টাব্দে সিডনি শান্তি পুরস্কারে ভূষিত হন। আমাদের গর্ব আমাদের অহংকার আইরিন খান বাঙালি জাতির জন্য অনুসরণীয় ও অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব।

Developed by: