আজ সিরামিশী গণহত্যা দিবস শহিদ আব্দুল মনাফ স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে স্মারক সংকলনের মোড়ক উন্মোচন

000000000পাকবাহিনীর এদেশীয় তাদের দোসর আলবদর, রাজাকার, আলসামস এবং দেশদ্রোহীরা গ্রামে গঞ্জে ডুকে সহজ সরল মানুষগুলোকে শান্তি কমিটির নাম করে ডেকে নিয়ে সারিবদ্ধভাবে দাড় করিয়ে ব্রাশ ফায়ার করে নির্মমভাবে হত্যা করা হতো। এমনি এক হত্যাকাণ্ড করেছিল জগন্নাথপুর ইউনিয়নের শ্রীরামিসী গ্রামের স্কুলের মাঠে ১৯৭১ সালের ৩১ আগস্ট। আজও ওই এলাকার বা পার্শবর্তী এলাকার মানুষের গা শিউরে উঠে। ওই ৩১ আগস্ট শহিদ হন আবদুল মনাফ পাক হানাদারের হাতে। শহিদ আবদুল মনাফের বাড়ি সিলেট জেলার বিশ্বনাথ থানা দশঘর গ্রামে। তিনি ৩১ আগস্ট মাসে তাঁর ছোট বোনের বাড়ি শ্রীরামিসী, বোনকে নিয়ে আসার জন্য গিয়েছিলেন। কিন্তু কি পরিতাপের বিষয় শান্তি কমিটির মিটিংয়ের নাম করে তাঁকে শ্রীরামিসী স্কুলে নিয়ে যাওয়া হয়। নিয়ে যাবার পরই শুরু হয় ইতিহাসের কলঙ্কময় গণহত্যা। সেখান থেকে আবদুল মনাফ আর ফিরে আসেন নি। হত্যা করে পাক হায়েনারা তাদের এদেশীয় দোসরদের দিয়ে লাশগুলোকে পানিতে ভাসিয়ে দেয়। খোঁজাখুজির পর প্রায় মাস খানেকের মাতায় গলিত অবস্থায় ভলবপুর গ্রামের খালে কচুরিপানার মধ্যে মিলেছিল। লাশ বাড়িতে নিয়ে আসার পর বাংলার আকাশ বাতাস যেন কান্নার রুলে ভারি হয়ে গিয়েছিল। আবদুল মনাফ স্ত্রী, এক মেয়ে ও এক ছেলে রেখে শহিদ হন।
শহিদ আবদুল মনাফ স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে আজ দশঘর ইউনিয়ন পরিষদ হলে আলোচনা সভা, স্মারক সংকলনের মোড়ক উন্মোচন ও শহিদের আত্মার শান্তিকামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ শফিকুর রহমান চৌধুরী। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থি থাকবেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আ ন ম শফিকুল হক।

Developed by: